সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১

‘ইটস কামিং হোম’ নাকি ‘ইটস গোয়িং রোম’!

একপক্ষের জন্য যা কখনও ছুঁয়ে দেখতে না পারার আক্ষেপ ঘোচানোর সুযোগ, অন্যপক্ষের জন্য তা অর্ধশত বছরের অপেক্ষার সমাপ্তি টানার সুযোগ! ইউরোর শিরোপা নির্ধারণী শেষ ম্যাচে সোমবার রাত ১টায় লন্ডনের ওয়েম্বলিতে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ইংল্যান্ড ও ইতালি। শেষ লড়াইয়ে যখন মাঠে নামবে দুই দলের খেলোয়াররা, তাদের চোখের সামনেই থাকবে রূপার কাপটা। জিতলেই কেবল মিলবে ছুঁয়ে দেখার অনুমতি! যা কখনও স্পর্শ করতে পারেনি স্টার্লিং-কেইন-পিকফোর্ডদের পূর্বসূরীরা; ইমোবিলে-কিয়েলিনি-ডোনারুমাদের পূর্বসূরীরা ছুঁয়েছিল ৫৩ বছর আগে।

ফুটবলের জন্ম তাদের দেশে হলেও, ইউরোর ৬১ বছরের ইতিহাসে এবারই প্রথম তার ফাইনালে খেলতে যাচ্ছে ইংলিশরা। আর প্রথম বলেই উত্তেজনাও হয়তো একটু বেশিই ইংলিশ সমর্থকদের মাঝে। পুরো ইংল্যান্ড তো বটেই, গোটা বিশ্বেই ইংলিশ ফুটবলের যত ভক্ত আছেন, সবার মুখে মুখে এই মূহুর্তে কেবল একটাই জপ- ‘ইটস কামিং হোম’, ‘ইটস কামিং হোম’!

১৯৬৬ সালে সর্বশেষ বিশ্বকাপ জিতেছিল ফুটবলের জন্মস্থান বলে পরিচিত ইংল্যান্ড। এরপর আর কোন বড় আসরে শিরোপার মুখ দেখতে সক্ষম হয়নি তারা। আর ইউরোর হিসেব ধরলে তো অর্জনের ঝুলি সেখানে তাদের খালিই! গত বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে পা দেয়ার পর পরই ইংলিশ সমর্থকদের ব্যানারসহ গাইতে শোনা গেছে ‘ইটস কামিং হোম’। মূলত ‘ইটস কামিং হোম’ একটি গান, যা মুক্তি পেয়েছিল ১৯৯৬ সালে ইংল্যান্ডে আয়োজিত ইউরো উপলক্ষে, বেশ জয়প্রিয়ও হয়েছিল যা পরবর্তীতে। সে সময় ‘ইটস কামিং হোম’ বলতে ঘরের মাঠে বড় আসরের আগমনী বুঝালেও, ২০১৮ বিশ্বকাপের সময় থেকে সেই অর্থ পাল্টে গেছে ইংলিশ ফুটবল ভক্তদের কাছে। ‘ইটস কামিং হোম’ দিয়ে তারা এখন শুধু শিরোপাকেই বোঝায়, যা তারা চায় মনেপ্রাণে। তাছাড়া, এবারের ইউরোতে দূর্বল ইউক্রেনের বিরুদ্ধে কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচটি বাদ দিলে আয়োজক না হয়েও ইংলিশরা তাদের বাদবাকি সবকটি ম্যাচ কিন্তু খেলেছে ঘরের মাঠেই! সবশেষ ফাইনালেও তারা পেতে যাচ্ছে সেই ঘরের মাঠের সুবিধা।

বিপরীতে প্রতিপক্ষ ইতালির জন্যও এবারের ইউরোর মাহাত্ম্য কম নয় একেবারে। সবশেষ ১৯৬৮ সালে নিজেদের মাঠে ইউরোর শিরোপা হাতে তুলেছিলো আজ্জুরিরা। এরপর কেটে গেছে ৫৩ বছর, রূপার কাপটি আর ছুঁয়ে দেখা হয়নি তাদের। চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে এমন রেকর্ড বড্ড বেমানানই বটে! ইংলিশদের হৃদয় ভেঙে তাই ইউরোর শিরোপা জিতে সেটা রোমে নিয়ে যাবার তাগিদ বলা চলে আজ্জুরিদেরও কম নয়! তাছাড়া, ২০১৮ বিশ্বকাপে কোয়ালিফাই করতে ব্যর্থ হওয়ার পর তাদের নিয়ে যে তামাশা হয়েছিল বিশ্বজুড়ে, তার জবাব দিতেও মরিয়া হয়ে আছেন বনুচ্চি-কিয়েলিনি-ইনসিগনেরা। রবার্তো মানচিনির বাহিনীর জন্য এবারের ইউরো ফাইনাল কেবল ৫৩ বছরের অপেক্ষার অবসান নয়, বরং বিশ্বকে ইতালিয়ান ফুটবলের পুনর্জাগরণ জানানোর!

সোমবারের ফাইনালের আগে এ পর্যন্ত মোট ২৭ বার দেখা হয়েছে থ্রি লায়ন্স ও আজ্জুরিদের, যেখানে পাল্লা ভারী আজ্জুরিদেরই। ২৭ বারের দেখায় ১১ বার জিতেছে তারা। আর ৮ বার জয়ের মুখ দেখেছে থ্রি লায়ন্স বাহিনী। বাকি আটটি ম্যাচ শেষ হয়েছে অমিমাংসিত অবস্থায়। মজার ব্যাপার হচ্ছে, বড় কোন আসরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কখনও হারেনি ইতালি! তবে, ইতালির জন্য ভয়ের ব্যাপার হতে পারে ইংলিশদের ঘরের মাঠ। এবারের ইউরোতে ফাইনালের আগ পর্যন্ত একবার মাত্র সাউথগেট বাহিনীর জালে বল জড়াতে সক্ষম হয়েছে প্রতিপক্ষরা।

এছাড়া, ডেনমার্কের বিপক্ষে সেমিফাইনালেই ইংলিশ দর্শকরা বুঝিয়ে দিয়েছেন, ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে তাদের ‘ইটস কামিং হোম’ মিশন সফল করতে যেকোন পর্যায়ে নামতে পারে তারা। সেই ম্যাচটি নিয়ে বিতর্ক তুলেছে বিশ্ব মিডিয়াসহ খোদ উয়েফা। ম্যাচ শুরুর আগ মূহুর্তে ডেনিশ ফুটবলারদের জাতীয় সঙ্গীতের সময় অনেক ইংলিশ দর্শককেই দেখা গেছে নিরবতা পালনের বদলে ‘বু বু’ আওয়াজ তুলে ডেনিশ জাতীয় সঙ্গীতের অবমাননা করতে। এছাড়া সেসময় আতশবাজিও ফুটিয়েছে গ্যালারিতে উপস্থিত কিছু দর্শক। বিতর্ক উঠেছে রেফারির ম্যাচ পরিচালনা নিয়েও।

অতিরিক্ত সময়ের খেলা চলাকালীন মাঠে দ্বিতীয় আরেকটি বল দেখার পরও খেলা থামাননি ডাচ রেফারি ড্যানি ম্যাকেলি। বরং একটু বাদেই ইংলিশদের একটি বিতর্কিত পেনাল্টি আবেদনে সাড়া দেন তিনি, যা থেকে গোল করে ডেনিশদের স্বপ্ন চুরমার করে দেন ইংলিশ স্ট্রাইকার হ্যারি কেইন। বিতর্কিত সেই পেনাল্টি সিদ্ধান্তে ভিএআর না দিয়ে শুধু রেফারিই নয়, ইংলিশ দর্শকরাও দেখিয়েছিল তাদের কুৎসিত চেহারা। হ্যারি কেইনের পেনাল্টি শট নেয়ার আগ মূহুর্তে স্পষ্ট দেখা যায়, ডেনিশ গোলরক্ষক ক্যাসপার স্মাইকেলের চোখের নিচে লেজার লাইট ফেলেছেন কোন এক ইংলিশ দর্শক! ম্যাচটি নিয়ে তদন্তে নামার ঘোষণাও দিয়েছে ইউরোপিয়ান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা উয়েফা।

ইতালির বিপক্ষে অনুষ্ঠিতব্য ফাইনালেও ওয়েম্বলির পুরো গ্যালারির দখল থাকছে সেই অতি প্যাশনেট ইংলিশ দর্শকদের হাতেই। করোনা মহামারির অযুহাতে কেবল দুই হাজার ইতালিয়ান দর্শক পেতে যাচ্ছেন ওয়েম্বলিতে প্রবেশের অনুমতি! শেষ পর্যন্ত তাই শিরোনামের মতো ছন্দময় হবে কিনা ওয়েম্বলির ফাইনাল তা নিয়ে সন্দেহের অবকাশ থেকে যাচ্ছে বেশ ভালোই! তবে খেলা যেমনই হোক, ইউরোর রূপার কাপটা এবার হয় রয়ে যাবে ইংলিশদের ঘরে, না হয় চলে যাবে ইতালির রোমে! ইতালিয়ানদের অপেক্ষা বাড়িয়ে মিটবে ইংলিশদের আক্ষেপ, নয়তো ইংলিশদের আক্ষেপ বাড়িয়ে মিটবে ইতালিয়ানদের অপেক্ষা!

বাংলাদেশ প্রেস/মিশু

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ খবর

আরও খবর

মৃত্যুদণ্ড-অঙ্গচ্ছেদের শাস্তি ফেরাচ্ছে তালেবান

তালেবানের কুখ্যাত ধর্মীয় পুলিশের প্রধান মোল্লা নুরুউদ্দিন তোরাবি বলেছেন, আফগানিস্তানে চরম শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড ও অঙ্গচ্ছেদ করার বিষয়টি ফের কার্যকর করা হবে। তিনি এখন...

আশার বাণী শোনালেন কিম এর বোন

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং আনের প্রভাবশালী বোন বলছেন, দক্ষিণ কোরিয়া যদি কোন উস্কানিমূলক পদক্ষেপ না নেয় তাহলে পিয়ংইয়াং সরকার শান্তি আলোচনা আবার শুরু...

আবার ক্ষমতায় ফিরছেন ট্রুডো

জাস্টিন ট্রুডোর লিবারেল পার্টি অল্প ব্যবধানে কানাডার নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় ফিরেছে, কিন্তু পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে। এ নিয়ে জাস্টিন ট্রুডো তৃতীয়বারের মতো কানাডার...

পাকিস্তানে ক্রিকেট দল পাঠানোর প্রস্তাব নাকচ বাংলাদেশের

একের পর এক বিভিন্ন দেশের সফর বাতিলের পর পাকিস্তানের ক্রিকেট যখন সংকটের মুখে, তখন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড আমন্ত্রণ জানিয়ে যোগাযোগ করেছিল বাংলাদেশের সঙ্গে। কিন্তু...

জালিয়াতির অভিযোগের মধ্যেই জয়ের পথে ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টি

সমর্থন কমে গেলেও প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টি দেশটির পার্লামেন্ট নির্বাচনে আরেক দফা বড় বিজয়ের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। রবিবার সন্ধ্যায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার কয়েক...