সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১

ইভ্যালি থেকে সাধারণ মানুষের টাকা আদায় করুন

অনলাইন মার্কেট প্লেস ইভ্যালি থেকে টাকা আদায় করে বিনিয়োগকারী সাধারণ মানুষকে ফেরত দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইনবিষয়ক সম্পাদক ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। ফেসবুক লাইভে এসে সরকারের প্রতি এ আহ্বান জানান তিনি।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘আজ দেখলাম ইভ্যালির বিভিন্ন অফিস খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। হটলাইনেও তাদের পাওয়া যাচ্ছে না। আমি ইভ্যালির ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করেছিলাম প্রায় ১৫-২০ দিন আগেই। আশ্চর্যের বিষয় হলো যে ভিডিওগুলো করার পরও ইভ্যালি নিয়ে এত কিছু শোনার পরও মানুষ ইভ্যালি থেকে ২০০ কোটি টাকার প্রি-অর্ডার করেছে।’

‘আমার মনে প্রশ্ন- এই মানুষগুলো কি লোভের দ্বারা এত বেশি তাড়িত যে আবারও ২০০ কোটি টাকার অর্ডার দিতে হবে?

সুমন বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংককে জিজ্ঞেস করতে চাই, ইনটেলিজেন্ট ইউনিট যারা আছে তাদের কাজ কী? (দেশে) যে যেভাবে ইচ্ছে ব্যবসা করতে পারবে? যা ইচ্ছে বলতে পারবে? বিজ্ঞাপনের নামে যা ইচ্ছে দিতে পারবে?’

‘ডেসটিনি একবার সাধারণ মানুষকে শেষ করে দিয়েছে। এখন ইভ্যালি-ধামাকার মতো প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই জায়গা পর্যন্ত এনেছে কে? বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কি বোঝে না? ৫০ পার্সেন্টের কম দামে হাজার হাজার পণ্য দিয়ে দিচ্ছে, এই প্রতিষ্ঠান যে ভেঙে পড়বে এটা কি তারা বোঝে না? লক্ষ লক্ষ মানুষের টাকার এই দায়টা এখন কে নেবে? আমি মাননীয় বাণিজ্যমন্ত্রীকে জিজ্ঞেস করতে চাই- এখন কী হবে এই মানুষগুলোর?’

তিনি বলেন, ‘আমি একটা বিষয় জানতে চাই- ইভ্যালিকে ৬০০/৭০০ কোটি টাকা দায় পর্যন্ত আনতে নেপথ্যে কারা? তাদের লাইসেন্সটা কারা দিল? এই আমাদের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ইভ্যালির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার কী আছে? আপনারা তো ডেসটিনির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ডেসটিনি এত বড় হয়ে যাওয়ার পর তারে জেলে ঢুকাইছেন- কিন্তু পাবলিক তো শেষ। এখন ইভ্যালির রাসেল সাহেবকে (ব্যবস্থাপনা পরিচালক) ধরে যদি অপরাধের কারণে ফাঁসিও দেন তাতে লাভ কী জনগণের?’

‘ইভ্যালির কাছ থেকে সুবিধা নিয়ে তারা ইভ্যালিকে এতদূর নিয়ে এসেছিলেন। আজ সাধারণ মানুষকে পথে বসিয়ে দিলেন। আমি সরকারের কাছে অনুরোধ জানাব- যেভাবে পারেন ইভ্যালির রাসেলকে আইনের আওতায় এনে সাধারণ মানুষের টাকা ফেরত দেয়ার ব্যবস্থা করেন। না হলে এ মানুষগুলোর বদদোয়াতে বাংলাদেশকে সোনার বাংলা বানানো অনেক বেশি কঠিন হয়ে যাবে।’

ব্যারিস্টার সুমন আরও বলেন, ‘হাজারো মানুষ ইভ্যালিতে লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে এখন দিশেহারা। জানি না রাসেল সাহেব এই টাকা কই নিয়ে গেছেন। তবে একটা কথা মনে রাখবেন- বাংলাদেশের দুইটা ক্ষতি হয়ে গেল। সাধারণ মানুষ টাকা হারিয়ে এখন পথে বসবে। আরেকটা হচ্ছে অনলাইন বিজনেস যা একটু ভালোর দিকে যাচ্ছিল ইভ্যালির বাজে উদাহরণ অনলাইন বিজনেস দাঁড়ানোর পথ বন্ধ করে দিলো। লাভ হলো কিছু দুর্নীতিগ্রস্ত অফিসারের।’

 

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ খবর

আরও খবর

মৃত্যুদণ্ড-অঙ্গচ্ছেদের শাস্তি ফেরাচ্ছে তালেবান

তালেবানের কুখ্যাত ধর্মীয় পুলিশের প্রধান মোল্লা নুরুউদ্দিন তোরাবি বলেছেন, আফগানিস্তানে চরম শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড ও অঙ্গচ্ছেদ করার বিষয়টি ফের কার্যকর করা হবে। তিনি এখন...

আশার বাণী শোনালেন কিম এর বোন

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং আনের প্রভাবশালী বোন বলছেন, দক্ষিণ কোরিয়া যদি কোন উস্কানিমূলক পদক্ষেপ না নেয় তাহলে পিয়ংইয়াং সরকার শান্তি আলোচনা আবার শুরু...

আবার ক্ষমতায় ফিরছেন ট্রুডো

জাস্টিন ট্রুডোর লিবারেল পার্টি অল্প ব্যবধানে কানাডার নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় ফিরেছে, কিন্তু পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হয়েছে। এ নিয়ে জাস্টিন ট্রুডো তৃতীয়বারের মতো কানাডার...

পাকিস্তানে ক্রিকেট দল পাঠানোর প্রস্তাব নাকচ বাংলাদেশের

একের পর এক বিভিন্ন দেশের সফর বাতিলের পর পাকিস্তানের ক্রিকেট যখন সংকটের মুখে, তখন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড আমন্ত্রণ জানিয়ে যোগাযোগ করেছিল বাংলাদেশের সঙ্গে। কিন্তু...

জালিয়াতির অভিযোগের মধ্যেই জয়ের পথে ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টি

সমর্থন কমে গেলেও প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ইউনাইটেড রাশিয়া পার্টি দেশটির পার্লামেন্ট নির্বাচনে আরেক দফা বড় বিজয়ের পথে এগিয়ে যাচ্ছে। রবিবার সন্ধ্যায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার কয়েক...