তিমির পেটে গিয়েও জীবিত ফিরলেন যে ব্যক্তি

তিমির পেটে গিয়েও জীবিত বেরিয়ে এসেছেন এক ব্যক্তি। এই ঘটনা যুক্তরাষ্ট্রের। ঘটনার বিস্তারিত সম্পর্কে জানা যায়, দেশটির এক সাগরে বিশাল আকৃতির হ্যাম্পব্যাক তিমি একজন লবস্টার শিকারিকে পুরোপুরি গিলে ফেলেছিল। পরবর্তীতে তিনি জীবিত বেঁচে ফিরেছেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঘটনার শিকার ব্যক্তি নাম মাইকেল প্যাকার্ড। তিনি সাগরের নীচে লবস্টার বা বড় আকারের চিংড়ি মাছের খোঁজ করার সময় বিশাল আকৃতির ঐ তিমিটি তাকে গিলে ফেলে। তিমির পেটের মধ্যে প্রায় ৩০-৪০ সেকেন্ড তিনি থাকেন। এরপর
তিমিটি তাকে মুখ থেকে থুতুর সঙ্গে বের করে দেয়।

প্যাকার্ডের গোড়ালি একটু মচকে যাওয়া ছাড়া তার আর কোন ক্ষতি হয়নি, পুরোপুরি অক্ষত অবস্থায় ফিরে এসেছেন।

জানা যায়, প্যাকার্ড ৪০ বছর ধরে ডুবুরির পেশায় নিযুক্ত আছেন। তার স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে তাকে এই পেশা ছাড়ে আসতে বললেও তিনি তা ছাড়েন নি।

বিবিসি জানিয়েছে, প্রতিটি হ্যাম্পব্যাক তিমি ৫০ ফিট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। একেকটির ওজন প্রায় ৩৬ টন।

৫৬ বছরের মাইকেল প্যাকার্ড এক গণমাধ্যমে বলেন, শুক্রবার সকালে হেরিং কোভে তিনি এবং তার সহযোগী মিলে তাদের নৌকা জা’ন জে নিয়ে যান।

ডব্লিউবিজেড-টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, স্কুবা গিয়ার নিয়ে নৌকা থেকে পানিতে নেমে ডুব দেয়ার পরেই, আমি বিশাল একটা ধাক্কা অনুভব করি এবং সবকিছু অন্ধকার হয়ে গেল।

প্যাকার্ড আরও বলেন, তিনি ধারণা করেছিলেন তিনি হয়তো বিশাল আকৃতির সাদা তিমির হামলার শিকার হয়েছেন। প্যাকার্ডের কথায়, তখন আমি বুঝলাম, হায় ঈশ্বর, আমি একটা তিমির মুখের ভিতরে চলে গেছি আর সে আমাকে গিলে ফেলার চেষ্টা করছে। এটাই শেষ, আমি মরে যাচ্ছি।”

প্যাকার্ড বলছিলেন, সেই সময় তিনি স্ত্রী আর তার দুই পুত্রের কথা ভাবছিলেন। এরপর হঠাৎ করে সে পানির ওপরে ভেসে উঠে প্রবলভাবে মাথা নাড়তে লাগলো।