চাকরি নয় কনটেন্ট ক্রিয়েটর পেশাকেই ভোট দিবেন শামস

শামস আফরোজ চৌধুরী। ছবি সংগৃহীত

শামস আফরোজ চৌধুরী, তবে ‘থটস অব শামস’ নামে সামাজিক মাধ্যমে অতি পরিচিত মুখ। যার তৈরি ভিডিও কনটেন্টে লাখ লাখ ভিউ, শেয়ার হাজারে হাজারে। শামসের ফেসবুক, ইউটিউব চ্যানেল ও বিভিন্ন কোম্পানির প্রমোশনাল স্পন্সর ফি বাবদ মাসে আয় কয়েক লাখ টাকা। নানা প্রসঙ্গ নিয়েই সম্প্রতি কথা হয়েছে বাংলাদেশ প্রেসের সঙ্গে। 

কনটেন্ট ক্রিয়েটর না হলে কী করতেন?

কনটেন্ট ক্রিয়েটর না হলে আমি হয়তো এখন অন্য কোন জব করতাম যেখানে সকাল থেকে সন্ধ্যা আমাকে গাধার খাটুনি খাটতে হতো। যাক আল্লাহপাকের অশেষ রহমত যে আমি আমার ভালবাসার কাজকেই আমার পেশায় পরিণত করতে পেরেছি।

সরকারি চাকরি না কনটেন্ট ক্রিয়েটর, এই মুহূর্তে আপনি কোনটাকে ভোট দিবেন?

চোখ বন্ধ করে কনটেন্ট মেকিংকে ভোট দিব। কারণ আমি ১০-২০ বছর চাকরি করে যা করতে পারতাম তা আমি কনটেন্ট তৈরি করে এক বছরে করতে পেরেছি। এবং কন্টেন্ট মেকিংয়ের জন্য আজকে এত মানুষ ভালবাসে, এত মানুষ চিনে। চাকরি করলে তো কেউ আমাকে চিনতো না। আর একটা কথা বলে রাখি আমাকে দিয়ে চাকরি বাকরি এমনিও হতো না কারণ কারো অধীনে কাজ করাটা আমার জন্য খুব বিরক্তিকর একটা ব্যাপার মনে হয়। আমি নিজের মত করে কাজ করতে পছন্দ করি। আর কনটেন্ট তৈরির কাজ আমার মত মানুষের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত পেশা।

পাঁচ বছর আগের শামস আর এখনকার শামসের মধ্যে পার্থক্য?

পাঁচ বছর আগে শামস ছিল ভীতু, কথা বলতে পারতো না, যেখানে যেতো রিজেক্ট হয়ে আসতো, যেকোন পরিস্থিতিতে নার্ভাস হয়ে যেতো। আমার আত্মবিশ্বাস ছিল শূন্যের কোঠায়। আর এখন পাঁচ বছর পরে আমি স্বাধীন, স্বনির্ভর এবং আত্মবিশ্বাসী একজন মানুষ। যার নিজের ওপর আছে অনেক অনেক আত্মবিশবাস।

আগামী ১০ বছর পর নিজেকে কোথায় দেখতে চান?  

যদি বেঁচে থাকি তাহলে নিজেকে আরও শক্তিশালী এবং আত্মবিশ্বাসী একজন মানুষ হিসেবে দেখতে চাই। থটস অব শামস নিয়ে অনেকে পরিকল্পনা আছে, ইনশাআল্লাহ সেগুলো নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে চাই।

আপনার প্রতিটি ভিডিওর মাধ্যমে দর্শকদের কী কোন বার্তা দেওয়া হয় ?

আসলে আমার ভিডিওগুলোর একটাই উদ্দেশ্য থাকে, যারা দেখেন তাদের মুখে হাসি ফুটানো। আমাদের চারপাশে প্রচুর নেগেটিভিটিস, আমি আমার ভিডিও’র মাধ্যমে সবার মাঝে পজিটিভিটি ছড়িয়ে দিতে চাই।

আপনার সম্পর্কে ভক্তরা জানেন না এমন তিনটি জিনিষ?

আমি নিজের সাথে একা একা কথা বলতে খুব ভালবাসি, আমি ঝাল খুব পছন্দ করি এবং ঘরে থাকতে বেশি ভালবাসি, অতিরিক্ত বাইরে ঘোরাফেরা আমার ভাল লাগে না।

নতুন যারা কনটেন্ট ক্রিয়েটর হতে যায় তাদের জন্য কোন পরামর্শ?

নতুনদের জন্য বলবো ভাল কনটেন্ট নিয়ে রেগুলার কাজ করতে পারলে ইনশাআল্লাহ ভাল ফল পাবে।