Friday, 7 May , 2021

গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট বাংলাদেশের ইয়ুথদের জন্য রেডি হচ্ছে: কার্টুনিস্ট মিশু

- Advertisement -

মার্কিন সাময়িকী ফোর্বসের অনূর্ধ্ব ৩০ তালিকায় এবার স্থান করে নিয়েছেন বাংলাদেশের নয় জন। এনিয়ে নিজের ফেসবুক আইডিতে পোস্ট করেছেন  ২০১৯ সালে ফোর্বসের একই তালিকায় স্থান করে নেওয়া বাংলাদেশের কার্টুনিস্ট মোরশেদ মিশু।

মোরশেদ মিশুর ফেসবুক পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হল:

ফোর্বস আন্ডার 30 ঘোষণা করে তার ১০ বছর হইলো এবছর… ২০১১ থেকে এই কার্যক্রম শুরু করে তারা…
ফোর্বসের এই কার্যক্রমে বাংলাদেশী তরুণ-তরুণীরা প্রতিনিধিত্ব করা শুরু করে ২০১৬ সাল থেকে… ২০১৬-২০২০ সাল, এই চার বছরে বিভিন্ন সেক্টরের ৯ জন বাংলাদেশী তরুণ-তরুণী উদ্যোক্তা এই লিস্টে নাম লেখাইছেন…

২০২১ সালে ঝড় তুলে ফেললো উদ্যোক্তারা… একেবারে ছক্কা (না না নক্কা) পেটাইলো তারা… এ বছর ৯ জন বাংলাদেশী নাম তুলে ফেললো ফোর্বস 30 আন্ডার 30 লিস্টে…

এই জেনারেশনকে দিয়ে কিছু হবে না চিন্তা করাদের জন্য এইটা যে কত সুন্দর একটা জবাব!!! বাংলাদেশের ইয়ুথরা যে গতানুগতিক চিন্তা থেকে বের হয়ে নিজ নিজ আইডিয়া এক্সিকিউট করার দিকে মনোযোগী হইতেছে এইটা একটা প্রমাণ… ৪ বছরে ৯ জন থেকে এক ধাক্কায় ১ বছরেই ৯ জন লিস্টে আসা এইটাও প্রমাণ করে যে আরো ৯০ জন, ৯০০ জন, ৯ হাজার জন কিংবা ৯ লাখ ইয়ুথ তাদের আইডিয়া নিয়া কাজ করতেছে…

এখন এই ব্যাপারে আপনার আমার করণীয় কি আছে???

১। লিস্টে কে কি করলো, এই লিস্টে কে কত যোগ্য অযোগ্য এই সংক্রান্ত শিটপোস্টিং করতে পারেন… (বলে রাখা ভালো, যারা তাদের আইডিয়া নিয়া কাজ কইরা আগাইতেছে, তারা অলরেডি প্রচুর বাঁধা, নেগেটিভ কমেন্ট, তোমাকে দিয়ে হবে না টাইপ কথা শুনে আগাইছে, আগাইতেছে…)

২। আপনার সামনে বা আশেপাশে যারা এমন স্টার্ট আপ আইডিয়া নিয়া আগাইতেছে তাদের আপনার পক্ষে যতখানি সম্ভব (অর্থ বিনিয়োগ, পরামর্শ ও অন্যান্য) তা দিয়া সহযোগিতা করতে পারেন… (খোঁজ নিয়া দেখেন, প্রত্যেকটা মানুষ যারা এমন কিছু অর্জন করছেন তাদের পিছনে পরিবার বা বন্ধু কিংবা বড় বড় ভাই ব্রাদারগণ ক্রমাগত অনুপ্রেরণা দিয়ে গেছেন, দিয়ে যাইতেছেন যে তোমাকে দিয়েই হবে…)

৩। এই সব লিস্ট ফিস্টে নাম আসা নিয়া আমার কিছু যায় না… (এইটা অনেক ভালো… কারো ভালো করতে না পারি, ক্ষতি তো করতেছি না…)

ফোর্বস কিংবা এই ধরণের রিকগনিশন বা এওয়ার্ড মানেই যে আমরা সবার থেইকা সেরা সেইটা ভাবারও কোন মানে নাই বাই দ্যা ওয়ে… এইটা নিজেদের কাজ গ্লোবালি ছড়ানোর একটা মোরাল বুস্ট… এইটা দেশের জন্য সন্মান… এইটা ইন্টারন্যাশনাল ইনভেস্টর, ভিসি (ভেনচার ক্যাপিটাল) বা এই ধরনের ব্যাক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে আলাপ চালানোর এক প্রকারের মানসিক জোর… আর তাছাড়া আমরা জাতিগতভাবে আন্তর্জাতিক এওয়ার্ড বা রিকগনিশনকে ব্যাপক পাত্তা দিয়ে থাকি, ঐদিক থেকে কাজ আগাইয়া নেয়ার জন্যও ব্যপারটা ভালো…

ফোর্বসের মত এমন রিকগনিশনগুলোর মারফত আপনি এমন ১৮ জনের স্টার্ট আপ, কোম্পানি, অর্গানাইজেশন বা কাজের ব্যাপারে জানতে পারলেন…(টেকনিক্যালি ১৬ জনের, রাবা খান আর আমার কোন স্টার্ট আপ, কোম্পানি বা অর্গানাইজেশন নাই, বাকি সবারই বোধহয় আছে যদ্দুর জানি)… আপনি যেমন জানলেন, জানলো লোকাল ইনভেস্টররাও… এইটা কাজের জন্য একটা পুশ… ১৮ কোটি মানুষের মধ্যে গত ৫ বছরে ১৮ জন ফোর্বস 30 আন্ডার 30… সামনের বছর সংখ্যাটা আরো বাড়ুক বা না বাড়ুক, বাংলাদেশ থেকে নোমিনেশনের সংখ্যা যে বাড়বে এইটা আমি লিখে দিলাম… ফোর্বস সেইসব নোমিনেশন ঘাটাতে গিয়ে দেখবে যে বাংলাদেশী ইয়ুথরা তো মিলিয়ন ডলার আইডিয়া নিয়া খেলতাছে…

আমরা নজর দেই আর না দেই, লোকাল ইনভেস্টর আর গ্লোবাল ইনভেস্টমেন্ট যে বাংলাদেশের ইয়ুথদের জন্য রেডি হইতেছে এই ব্যাপারে আমি যথেষ্ট আশাবাদী…
তাই ভরসা রাখুন ইয়ুথে…
জী ধন্যবাদ…

- Advertisement -

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ খবর

আরও খবর

চবিতেও পেছাতে পারে পরীক্ষা

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রকোপের কারণে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক প্রথম বর্ষের পরীক্ষার তারিখও পেছাতে পারে। এমনটি জানিয়েছেন উপাচার্য শিরীণ আখতার। তবে তিনি জানান, এনিয়ে এখন পর্যন্ত...